প্রথিতযশা সাংবাদিক ও লেখক শামছুর রহমান কেবলের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

শামছুর রহমানের জন্ম উনিশশো সাতান্ন সালের পাঁচই মে যশোর জেলার শার্শা উপজেলার শালকোনা গ্রামে। ডাকনাম কেবল। এই নামেই যশোরের মানুষ তাঁকে বেশি চিনতেন। ছয় বোন দুই ভায়ের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়।

লক্ষণপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে তিনি উনিশশো বাহাত্তর সালে মাধ্যমিক, উনিশশো চুয়াত্তর সালে যশোর সিটি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেন। এরপর যশোর সরকারী মাইকেল মধুসূদন মহাবিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে বিএ(অনার্স) সম্পন্ন করেন উনিশশো সাতাত্তর সালে এবং পরের বছর অর্থাৎ উনিশশো আটাত্তর সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে এমএ পাস করেন তিনি।

মূলত কলেজে পড়াশোনার সময় তিনি সাংবাদিকতা পেশায় জড়িয়ে পড়েন। দৈনিক বাংলায় নিয়মিত রাজনীতি,সমাজ,অর্থনীতি ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে তার উপ-সম্পাদকীয় প্রকাশিত হয়েছে। সাপ্তাহিক বিচিত্রায় নিয়মিত রিপোর্ট ও বিভিন্ন বিষয়ে নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে।

সাপ্তাহিক বিচিত্রায় আন্তর্জাতিক বিভাগে ভারতীয় রাজনীতির উপর তার পাঁচ শতাধিক লেখা প্রকাশিত হয়। এছাড়া কলকাতা থেকে প্রকাশিত দৈনিক গনশক্তি পত্রিকায় বিভিন্ন বিভাগে লেখা প্রকাশিত হয়েছে।

তার উল্লেখযোগ্য প্রকাশনার মধ্যে রয়েছে উপন্যাস :
ধূসর সীমান্তে যা উনিশশো বিরানব্বই সালে প্রকাশ হয়।

‘রাজনীতির জ্যোতি বসু’ নামে একটি রাজনৈতিক জীবনী তিনি প্রকাশিত হয় উনিশশো পঁচানব্বই সালে।

এছাড়াও উনিশশো তিরানব্বই সালে শিশুতোষ জীবনীমালা ‘একজন বড় মানুষের গল্প’ তিনি প্রকাশিত করেন।

উনিশশো সাতানব্বই সালের পহেলা জুন যোগদান করেন সিনিয়র রিপোর্টার হিসাবে দৈনিক জনকণ্ঠে। শহীদ হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি ছিলেন ওই পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি।

প্রথিতযশা এই সাংবাদিক শামছুর রহমান কেবল দুইহাজার সালের আজকের এই দিনটিতে অর্থাৎ ষোল জুলাই রাতে জনকণ্ঠ যশোর অফিসে কর্মরত অবস্থায় আততায়ীর গুলিতে নিহত হন।

আজ তার মৃত্যুবার্ষিকীতে লোকজ সাংস্কৃতিক সংগঠনের সকল সদস্য দায়িত্বশীল এবং শুভাকাঙ্ক্ষীবৃন্দের পক্ষ থেকে জানাচ্ছি বিনম্র শ্রদ্ধা এবং অজস্র ভালোবাসা।

তাংঃ-১৬/০৭/২০২১ ইং।

Facebook Comments